5.6 C
New York

২১ আসনের ১৩টিতেই ভোট ছিল ‘একতরফা’

Published:

এবারের নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করতে দলের নেতাদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোটের মাঠে নামতে উৎসাহিত করেছিল আওয়ামী লীগ। ভোটের মাঠের চিত্র বিশ্লেষণ করে নির্বাচনের আগে নির্বাচনী কর্মকর্তা ও আওয়ামী লীগ নেতারা প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ধারণা করা হচ্ছে অন্তত ৮টি আসনে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। তবে ৮টি আসনের মধ্যে কেবল ৪টিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে। সেসব আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন। ভোটের হিসাবে বাকি ৪টিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতার প্রতিফলন দেখা যায়নি। বিশেষ করে ১৩টি আসনে ভোট হয়েছে একেবারেই প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন। এর মধ্যে বরিশাল-১ (গৌরনদী-আগৈলঝাড়া), বরিশাল-৪ (মেহেন্দীগঞ্জ-হিজলা), বরিশাল-৩ (বাবুগঞ্জ-মুলাদী), বরগুনা-২ (বামনা-বেতাগী-পাথরঘাটা), ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া), ঝালকাঠি-২ (সদর-নলছিটি), ভোলা-১ (সদর), ভোলা-২ (দৌলতখান ও বোরহানউদ্দিন), ভোলা-৩ (তজুমদ্দিন ও লালমোহন) ও ভোলা-৪ (মনপুরা ও চরফ্যাশন) আসনে ভোট হয়েছে অনেকটা একতরফা।

ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, এই ১৩ আসনের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন ভোলা-৪ আসনের নৌকার প্রার্থী আবদুল্লাহ আল ইসলাম ওরফে জ্যাকব। তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে ২ লাখ ৪০ হাজার ৪৩৫ ভোট বেশি পেয়েছেন। সবচেয়ে কম ব্যবধানে জিতেছেন ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শাহজাহান ওমর। অবশ্য তিনিও নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে ৯৩ হাজার ৮৫৪ ভোট বেশি পেয়েছেন।

Related articles

Recent articles

spot_img