26.3 C
New York

হুইলচেয়ারে বসে দুবাইয়ে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কথা বলছেন ঢাকার আনিলা

Published:

গতকাল শনিবার মেসেঞ্জারে কথা হয় আনিলার সঙ্গে। সম্মেলনের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জানতে চাইলে বলেন, ‘এখানে সবার আন্তরিক ব্যবহারে আমার মনেই হচ্ছে না আমার কোনো শারীরিক সমস্যা আছে। জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের যেসব চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হচ্ছে, তা নিয়ে কথা বলছি। বন্যা হলে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে পারে না। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাংলাদেশের অন্তঃসত্ত্বা নারীরা নানা সমস্যায় পড়ছেন—এগুলো তুলে ধরার চেষ্টা করছি।’

আনিলা জানালেন, দেশে ফিরে সম্মেলনের নানা অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করতে চান। তিনি একটি রেসকিউ টিম গঠন করতে চান, যাঁরা বিভিন্ন দুর্যোগে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উদ্ধারসহ নানা সহায়তা দেবেন। প্রশিক্ষণ পাওয়া প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরাও এ টিমে কাজ করবেন।

এর আগে ২০২০ সালে জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামে (বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি) ভলান্টিয়ার অ্যাসিস্ট্যান্ট (স্বেচ্ছাসেবক সহযোগী) হিসেবে দুর্যোগকালীন সহায়তা, প্রবেশগম্যতা নিশ্চিত করা, খাদ্যনিরাপত্তা ইত্যাদি বিষয়ে প্রতিবন্ধীবান্ধব পরিকল্পনা প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়নের অভিজ্ঞতা আছে আনিলার। আনিলা লন্ডন, ভারত, মালয়েশিয়া, ব্যাংকক, ভুটানসহ নানা দেশে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন।

আনিলার বাবা আশফাক-উল কবীর এবং মা মারুফা হোসেনও ইউএনএফসিসিসির খরচে কেয়ারগিভার (সেবাদাতা) হিসেবে আনিলার সঙ্গেই আছেন।

বাবা আশফাক-উল কবীর চাকরি ছেড়ে দিয়েছিলেন শুধু মেয়েকে সময় দেওয়ার জন্য। তিনি বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের জন্য স্কুল ফর গিফটেড চিলড্রেন ও তরী ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছেন এবং এ প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন।

Related articles

Recent articles

spot_img