8.3 C
New York

‘সেলিব্রিটি হয়েও সাত বছর মার খেয়েছি, মা-বাবাকে নিয়ে যা ইচ্ছা তা–ই শুনেছি’

Published:

বিভিন্ন সময় মেয়ে হয়ে মেয়েদের রোষানলে পড়তে হয় মেয়েদের। দেখা যায় বিবাহবিচ্ছেদ বা পরবর্তী প্রেম নিয়ে মেয়েরাই আগে প্রশ্ন তোলেন; এমন অভিজ্ঞতার কথা জানান স্বাগতা। তাঁর মতে, মেয়েরাই মেয়েদের কম বুঝতে পারে। এটাকে তিনি মেয়ের পক্ষ থেকে মেয়েকে ইভটিজিং বলতে চান। ‘আমি প্রেমে পড়ে বারবার বিয়ে করছি, এতে ঈর্ষান্বিত হয়ে আমাকে নিয়ে ছেলেরা নানা কথা বলছেন, সেটা আমি মেনে নিতে পারতাম। তখন হয়তো বলতে পারতাম, ছেলেরা আমাকে পছন্দ করেন। তাঁদের এটা ভালো লাগছে না, যে কারণে উল্টাপাল্টা কথা লিখছেন। কিন্তু মেয়েরা কেন?’ বলেন স্বাগতা।

বিনোদন জগতে শুধু অভিনেত্রীদের বিবাহবিচ্ছেদ নিয়ে নানা প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়। কিন্তু অভিনেতা বা নায়কদের বিয়ে নিয়ে সে অর্থে খুব একটা কথা হয় না। এ প্রসঙ্গে স্বাগতা বলেন, ‘আমাদের প্রায় সব নায়কেরই তো ডিভোর্স, কই তাঁদের নিয়ে তো কথা বলেন না। আমার বন্ধুবান্ধবদেরও একই অবস্থা। প্রায় সবার ডিভোর্স। এটা আসলে যুগের সমস্যা। এটা ডিজিটাল মাধ্যমসহ নানা কারণে হতে পারে। আমরা যখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করি, তখন একটা শর্ট কানেকশন হয়ে যায়। এখানে নানা কথা বলা যায়। আমার সাবেক স্বামী আমাকে অসম্মান করতেন আর মানুষকে বলতেন যে মেয়েদের তিনি খুব সম্মান করেন। এগুলো কি সহ্য করা যায়? আমাকে ঘরে পেটাচ্ছেন, আবার ব্যাংকে গিয়ে সার্ভ করা মেয়েটির দুঃখ শুনে আসছেন। ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে আমি কখনোই কথা বলিনি, বলতে চাইনি। আর ডিভোর্স নিয়ে উল্টাপাল্টা কথা বলা বন্ধ করুন। যৌক্তিক কথা বলুন। না জেনে কারও ওপর দোষ চাপাবেন না।’

Related articles

Recent articles

spot_img