11.2 C
New York

সবুজে মোড়া ৩ হাজার গাছ কাটার উদ্যোগ

Published:

এক সড়কে এত গাছ কাটার বিষয়ে কোনো কিছুই জানেন না বলে দাবি করেছেন সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম প্রামাণিক। যদিও সড়কটি তাঁদের আওতাধীন। বন বিভাগের ভাষ্য, এসব গাছ সামাজিক বনায়নের মাধ্যমে লাগানো হয়েছিল। কাটার সময় হওয়ায় নিয়মানুযায়ী এখন এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুনামগঞ্জ সদর থেকে জামালগঞ্জ উপজেলার সাচনাবাজার পর্যন্ত সড়কের দূরত্ব ১৯ কিলোমিটার। সওজের আওতাধীন সড়কটি ২০২২ সালের বন্যায় ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। গত বছরের জুনে সড়কটি সংস্কার হয়। তখন সওজের পক্ষ থেকে সড়ক সংস্কারের সময় যেসব গাছের গুঁড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, সেগুলোর বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বন বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। ওই গাছগুলো সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির মাধ্যমে রোপণ করা হয়েছিল। স্থানীয় লোকজন গাছের পরিচর্যা করেন। এখন মেয়াদ পূর্ণ হওয়ায় গাছ কাটার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, সদর উপজেলার সুরমা নদীর আবদুজ জহুর সেতু থেকে টুকেরবাজার পর্যন্ত সাত কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে তেমন গাছ নেই। টুকেরবাজার থেকে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার নিয়ামতপুর হয়ে সড়কটি জামালগঞ্জের সাচনাবাজার পর্যন্ত গেছে। সড়কের বেশির ভাগ অংশ সদরে। দুই পাশে সারি সারি গাছ। টুকেরবাজার থেকে গাছে নম্বর দেওয়া শুরু হয়েছে। সদরের উমেদশ্রী, নিধিরচর, ইচ্ছারচর, ইসলামপুর, বেড়াজালি, আহমদাবাদ; বিশ্বম্ভরপুরের দুলবারচর, সংগ্রামপুর এবং জামালগঞ্জের শেরমস্তপুর, নজাতপুর থেকে সাচনাবাজার পর্যন্ত প্রতিটি গাছে নম্বর দেওয়া।

Related articles

Recent articles

spot_img