29.9 C
New York

শ্যামাসুন্দরীর আর্তনাদ বন্ধ হবে কবে

Published:

শ্যামাসুন্দরীর আর্তনাদ বন্ধ হবে কবে

আমার প্রশ্ন হচ্ছে, খালটির সঙ্গে আমাদের এমন আচরণ আসলে কতটুকু ঠিক হচ্ছে? রংপুর শান্তিপ্রিয় একটি শহর। সবুজময় প্রকৃতির ভিড়ে মানুষও সহজ–সরল। কিন্তু রংপুর বিভাগের সমস্যা সমাধান করার মতো কি কেউ নেই?

রংপুর শহরে কি ব্যারিস্টার সুমনের মতো নেতা জন্ম নেবে না? যে নেতা বলবে,  ‘মুই খালোত নামছু, তোমরা সবাই খালোত নামো, হামরা খালের যৌবন ফিরিয়ে দেই।’ যদি ব্যারিস্টার সুমন থাকতেন শ্যামাসুন্দরীর আর্তনাদ হয়তো শুনতে হতো না।

বলাই যায়, আমাদের পোড়া কপাল। শুধু এই খালেই নয়, রংপুর বিভাগের তিস্তা মহাপরিকল্পনা মিডিয়ার মধ্যেই সীমাবদ্ধ, সরকারের কোনো মেগা প্রজেক্টের একটিও নেই।
চোখের সামনে প্রবহমান একটি খাল বিলীন হয়ে যাচ্ছে। নদীর সঙ্গে মিশে আছে আমাদের আবেগ, ঘাম, ভালোবাসা ও কবিতা। কবিরা কলমের কালিতে নদীকে ঠাঁই দিয়েছে। জেলেদের আবাসস্থল যেন নদী নালা।

বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। নদীর সঙ্গে বাঙালির একটা জনম জনমের সম্পর্ক বিদ্যমান। কিন্তু সমাজের মানুষ নদীর সঙ্গে কি ভালো ব্যবহার করছে? দেশের অধিকাংশ নদীই আজ মুমূর্ষু।

আজকে নদীগুলো প্রাণভরে নিশ্বাস নিতে পারছে না। একটুখানি বেঁচে থাকার আকুতি–মিনতি করছে। হাউমাউ করে কাঁদছে। দম বন্ধ হয়ে মারা যাচ্ছে। শ্যামাসুন্দরী তাদের মধ্যে একটি। শ্যামাসুন্দরী খালটির সুন্দরী ট্যাগটি আজকে বড্ড বেমানান দেখাচ্ছে। সবার মতো শ্যামাও আজকে বাঁচতে চায়। রংপুর নগরীর সব পানির দায়িত্ব সে নিতে চায়। তার দায়িত্ব পালনে আমরা কি হাত বাড়িয়ে দিতে প্রস্তুত?

মো. মমিনুর রহমান
শিক্ষার্থী, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর

Related articles

Recent articles

spot_img