22.3 C
New York

যেসব দেশের ফ্রিল্যান্সারদের চাহিদা বেশি, বাংলাদেশিরা কোন অবস্থানে?

Published:

এই তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান নিয়ে বাংলাদেশ ফ্রিল্যান্সার ডেভেলপমেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান তানজিবা রহমান আজ সোমবার প্রথম আলোকে বলেন, ‘নানা কারণে এই তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ২৯তম। তালিকাটি করা হয়েছে হায়ারিং মানে কাজ দেওয়ার প্রবণতার ওপর নির্ভর করে। সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশ পৃথিবীর ফ্রিল্যান্সারদের দ্বিতীয় বৃহত্তম আবাসস্থল। কিন্তু কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের কর্মীরা বেশ পিছিয়ে। এখানকার ফ্রিল্যান্সাররা কম পারিশ্রমিকের কাজ বেশি করেন। গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইনের মতো কাজের বাজারে আবার প্রতিযোগিতা অনেক বেশি। কারিগরি যেসব ফ্রিল্যান্স কাজ হয়, সেখানে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সারদের উপস্থিতি কম। এখনো সেই ঘণ্টাপ্রতি পাঁচ থেকে সাত ডলারেরর কাজ নিয়ে প্রতিযোগিতায় নামছেন সবাই।’

তানজিবা জানান, চতুর্থ‌ শিল্পবিপ্লবের সঙ্গে যুক্ত প্রযুক্তিজ্ঞাননির্ভর কাজের সুযোগ বাড়ছে। এসব কাজে ঘণ্টাপ্রতি ৫০ থেকে ১০০ ডলার আয়ের সুযোগ আছে। তিনি বলেন, ‘ফ্রিল্যান্সিং দুনিয়ার কাজের ধরনে যে মাত্রায় দ্রুত পরিবর্তন আসছে, তা থেকে আমাদের ফ্রিল্যান্সাররা কিছুটা পিছিয়ে বলা যায়। প্রযুক্তিগত যথাযথ প্রশিক্ষণ না থাকার কারণে আমাদের ফ্রিল্যান্সাররা সাধারণ কাজ করেন। আবার আমাদের ফ্রিল্যান্সারদের কাজ ঠিক সময়ে শেষ না করার প্রবণতা আছে। ভাষাগত যোগাযোগের ক্ষেত্রেও দুর্বলতা আছে বলে অনেক কাজে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সারদের আবেদনই গ্রহণ করা হয় না। দক্ষতা না বাড়ানোর কারণে আমরা তালিকার পেছনে আছি। তরুণ ফ্রিল্যান্সারদের কারিগরি ও মূল বিষয়গুলোয় প্রশিক্ষিত করে আমরা তালিকার ওপরের দিকে যেতে পারি।’

Related articles

Recent articles

spot_img