23.3 C
New York

যেভাবে গার্দিওলার মন জিতেছিলেন পোস্তেকোগলু

Published:

যেভাবে গার্দিওলার মন জিতেছিলেন পোস্তেকোগলু

গার্দিওলা ও পোস্তেকোগলু দুজনের ফুটবল দর্শনই বেশ কাছাকাছি। বলের দখল রেখে ক্রমাগত পাসে আক্রমণ গড়া, ফলের দিকে না তাকিয়ে প্রক্রিয়া অনুসরণ করা, গত কিছুদিনে টটেনহামের খেলাতেও তাই বেশ পরিবর্তনের ছাপ। আসলেই কি পোস্তেকোগলু গার্দিওলার ফুটবল দর্শনে প্রভাবিত? প্রশ্নটা শুনে গত জুলাইয়ে অস্ট্রেলিয়ান এই কোচ বলেছিলেন, ‘আমার ফোনবুক চেক করে দেখুন, তাঁর নম্বরই নেই।’

সরাসরি হয়তো যোগাযোগ নেই, কিন্তু ফুটবল–দর্শনে মিলটা বেশ স্পষ্ট। প্রক্রিয়া অনুসরণের ব্যাপারে দুজনেই খুব কঠোর, দুজনের কাছেই ‘ভালো’র কোনো শেষ নেই, আরও বেশি চান সব সময়ই। গার্দিওলার মতোই পুরো স্বাধীনতা না পেলে কিংবা নিজের ফুটবল দর্শনের সঙ্গে না মিললে সেই জায়গায় কাজ করেন না পোস্তেকোগলু। এ কারণেই ২০১৮ বিশ্বকাপের ঠিক আগে আগে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দলের দায়িত্ব ছেড়ে দিয়েছিলেন, কারণ তাঁর মনে হয়েছিল, অস্ট্রেলিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের লক্ষ্য আর তাঁর লক্ষ্য এক নয়। নিজেকে প্রতিনিয়ত পরীক্ষার মধ্যে ফেলতে চান বলেই কোনো ক্লাবে তিন বছরের বেশি স্থায়ী হননি।

গার্দিওলার বিপক্ষে আজ পোস্তেকোগলুর যে দলটা খেলবে, তারা টানা তিন ম্যাচ জয়হীন, রক্ষণভাগ চোটে জর্জরিত। এমন একটা দল নিয়ে সিটির বিপক্ষে ওদেরই মাঠে হলান্ড-আলভারেজ-ফোডেনদের আক্রমণভাগ সামলানো, রদ্রির কাছ থেকে মাঝমাঠে বল কেড়ে নেওয়া, কঠিনের চেয়েও বেশি কিছু।

কিন্তু সিটিকে কঠিন পরীক্ষায় ফেলেই তো বছর চারেক আগে পোস্তেকোগলু জয় করেছিলেন গার্দিওলার মন। আজও কি পারবেন?

Related articles

Recent articles

spot_img