10.1 C
New York

মেলোডি কিং প্রণব ঘোষ, আমরা দাদাকে কিছুই দিতে পারিনি

Published:

এরপর কুমার শানু আবার ফিরে গেলেন বিশ্রাম কক্ষে। দাদা আবারও হারমোনিয়ামে দ্বিতীয় গানটি ‘আকাশ জানে সাগর জানে আমারই শুধু যে তুমি’ গেয়ে শোনালেন। শানু দাও সুরটা তুললেন এবং আবারও দাদার অনুরোধে ভয়েজ রুমে চলে গেলেন। একই দৃশ্যর অবতারণা হলো। আমরা উপস্থিত সবাই দ্বিতীয়বার বিস্মিত হলাম। এবাবেই দাদা সেদিন কুমার শানুকে দিয়ে ছয়টি গান গাইয়ে নিলেন। আর ছয়টির মধ্যে প্রথম দুটি গানই ছিল আমার লেখা।  
১৯৯১ সালে শুভ্রদেবের ‘শেষ চিঠি’ অ্যালবামটি তুমুল হিট হওয়ার পর থেকেই প্রণব দার বাড়িতে শিল্পী ও অডিও কোম্পানিগুলোর ভিড় লেগে যায়। যদি হিসাব করি, তবে ১৯৯১ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত টানা বারো বছর অডিও ইন্ড্রাস্ট্রি রাজত্ব করেছেন প্রণব ঘোষ। এবার বছরে সব চাইতে বেশি ব্যবসাসফল অ্যালবাম দিয়েছেন প্রণব ঘোষ। তাঁর সুর করা অ্যালবাম দিয়েই অনেক অডিও প্রতিষ্ঠান দাঁড়িয়ে গেছে, অনেক শিল্পীই পেয়েছেন তারকাখ্যাতি।
এই এক যুগ প্রণব ঘোষের সুরে ব্যবসাসফল অ্যালবামগুলো হলো শুভ্র দেবের শেষ চিঠি, বুকের জমিন, আমার ভালোবাসা, সাদা কাগজ। তপন চৌধুরীর আমার পৃথিবী, অনুশোচনা। ডলি সায়ন্তনী–কালিয়া, বিরহী প্রহর, এক জনমে। রবি চৌধুরীর এক নয়নে কান্দো, পাশাপাশি। এস ডি রুবেলের বেদনার বালুচর, কেউ নেই, শুধু একবার। মিশ্র অ্যালবাম–অন্তরে তুমি, তুমি পাশে নেই, নীরব চিঠিসহ আরও অসংখ্য অ্যালবাম।
প্রণব ঘোষের সুরে জনপ্রিয় গানগুলো হলো ‘আমি সবকিছু ছাড়তে পারি’, ‘অনুশোচনা’, ‘পৃথিবীর মতো হৃদয়টাকে’, ‘প্রিয়ার মনের কথা’, ‘জীবনের গল্প একটাই’, ‘যদি কখনো জানতে পারো’, ‘এ মন আমার পাথর তো নয়’, ‘মরণ যদি হয় তোমার প্রেমের আঘাতে’, ‘এ আমার  শেষ চিঠি’, ‘ফুল যত সুন্দর হোক না কেন’, ‘এই সেই বুকের জমিন’, ‘সাদা কাগজের পাতায় পাতায়’, ‘বিষম পিরিতি’, ‘দেখলে তোমায়’, ‘আকাশ হারায় নীল’, ‘লোকে আমায় পাগল বলে’, ‘অনেক বেদনাভরা আমার এ জীবন’, ‘অন্তরে আছ তুমি আমার’সহ আরও অসংখ্য গান।

Related articles

Recent articles

spot_img