14.9 C
New York

মালয়েশিয়ায় বেতন না পেয়ে অভিযোগ দিতে গিয়ে ৩ বাংলাদেশি গ্রেফতার

Published:

মালয়েশিয়ায় বেকস কনস্ট্রাকশন এসডিএন বিএইচডি নামের একটি কোম্পানির মালিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়েরকারী তিন বাংলাদেশি শ্রমিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এজন্য পুলিশের দ্বিমুখী নীতির অভিযোগ তুলেছে দেশটির মানবাধিকার সংগঠন ‘পার্টি সোসিয়ালিস মালয়েশিয়া’ (পিএসএম)।

পার্টি সোসিয়ালিস মালয়েশিয়ার ব্যুরো প্রধান এম. শিবরঞ্জনীর বরাতে, গতকাল শনিবার দেশটির গণমাধ্যম নিউ স্ট্রেইটস টাইমস ও ফ্রি মালয়েশিয়া টুডের প্রতিবেদনে বলেছে, নিয়োগকারী কোম্পানির বিরুদ্ধে প্রশাসন কোনো ফৌজদারি ব্যবস্থা নেয়নি। বরং বাংলাদেশি কর্মীদের কাজ দেয়নি, বেতন দেয়নি এবং তাদের পাসপোর্টও আটকে রেখেছে মালিকপক্ষ।

শিবরঞ্জনী বলেছেন, তিনজন শ্রমিক তাদের নিয়োগকর্তার বিরুদ্ধে পুলিশে প্রতিবেদন এবং শ্রম বিভাগে অভিযোগ করেছেন। বিষয়টি শ্রম বিভাগ ও মানবসম্পদমন্ত্রীর কাছেও উপস্থাপিত হয়েছে। পুরো ঘটনা মূলত সন্দেহজনক মোড়কে মোড়ানো মনে হচ্ছে বলে এমনই জানিয়েছে দেশটির অনলাইন ফোকাস মালয়েশিয়াও।

তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় ওয়ার্ক পারমিটের আওতায় আনা ১৬০ জন শ্রমিকের মধ্যে এই তিনজনও ছিলেন এবং বেকস কনস্ট্রাকশন এসডিএন বিএইচডি নামীয় কোম্পানিটি তাদের কাজের জন্য প্রতিমাসে বেসিক ১৫০০ রিঙ্গিত বেতনের কথাও দিয়েছিল। তবে তারা মালয়েশিয়ায় আসার পর থেকে কোনো কাজ বা বেতন পাননি এবং বর্তমানে তারা বেকার জীবনযাপন করছেন।

তাদের এখানে নিয়ে আসার পর দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরের পুত্রা ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের পাশে, ২৮, জালান রহমাত, চৌকিটের এসআর হোস্টেল অ্যান্ড রেসিডেন্স এসডিএন বিএইচডিতে রাখা হয়েছে।

দেশটির মানবাধিকারকর্মী শিবরঞ্জনী বলেছেন, তাদের পাসপোর্ট কোম্পানি মালিক আটকে রেখেছে। পিএসএম ৪ জানুয়ারি দেশটির সুবাং জয়া শ্রম বিভাগের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ দায়ের করতে সহায়তা করেছিল এবং ৩০ জানুয়ারি মানবসম্পদমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ অভিযোগটি পৌঁছে দিয়েছিল।

তারপর ৭ মার্চ, আমাদের একজন কর্মকর্তাকে বলা হয়েছিল, বিভাগটি কোম্পানি মালিককে দুটি বিকল্প রাস্তার কথা বলে দিয়েছিল। এক, তার শ্রমিকদের দেশে ফেরত পাঠাতে কিংবা তাদের জন্য নতুন কোনো কোম্পানিতে কাজের ব্যবস্থা করতে। এছাড়া, কোম্পানি মালিককেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, তার শ্রমিকদের মালয়েশিয়ায় আনার তারিখ থেকে তাদের মজুরি পরিশোধ করতে।

এদিকে শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করা মানবাধিকার সংগঠন পার্টি সোসিয়ালিস মালয়েশিয়া (পিএসএম) পুলিশকে অবিলম্বে আটক তিনজন শ্রমিককে মুক্তি দিতে এবং তিন শ্রমিককে পাসপোর্ট ফেরত দেওয়া নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছে।

এছাড়া শিবরঞ্জনী দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রীকে আহ্বান জানিয়ে আরও বলেছেন, আমরা মানবসম্পদমন্ত্রীকে দ্রুত সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করছি।

এমআরএম/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি,
স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা
পাঠানোর ঠিকানা –
[email protected]

Related articles

Recent articles

spot_img