8.3 C
New York

মাগুরা ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে দুদকের অনুসন্ধান

Published:

মাগুরা ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে ওষুধ সরবরাহে অনিয়ম নিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার (২৪ মার্চ) দুদক ঝিনাইদহ আঞ্চলিক কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ বজলুর রহমানের নেতৃত্বে এ অনুসন্ধান অভিযান পরিচালিত হয়।

দুদকের ঝিনাইদহ আঞ্চলিক কার্যালয়ে দাখিল হওয়া হাসাপাতালটিতে রোগীদের ওষুধ
সরবরাহের অনিয়ম সংক্রান্ত একটি অভিযোগ তদন্তে এ অনুসন্ধান চালানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

হাসপাতালের একটি সূত্র জানিয়েছে, সরকারি ওষুধ যথাযথভাবে না দিয়ে জোর করে ওয়ার্ড ইনচার্জদের দিয়ে রেজিস্ট্রারে স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে স্টোর কিপার গৌতম বিশ্বাসের বিরুদ্ধে।

অভিযানকালে, অনুসন্ধান দলটি হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ও স্টোর রুমে সরকারিভাবে সরবরাহ করা ওষুধ, চিকিৎসা সরঞ্জামের কাগজপত্র পর্যবেক্ষণ করেন। পাশাপাশি হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে স্টোর রুমে থাকা মালামালের সঙ্গে কাগজপত্রের যথাযথ মিল আছে কিনা যাচাই করেন।

অভিযুক্ত গৌতম বিশ্বাস বলেন, তারা আমার দফতরের বিভিন্ন কাগজপত্র ও রেজিস্ট্রার খাতা দেখেছেন। আমি যথাযথভাবে সেগুলো উপস্থাপন করেছি। হাসপাতালে ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহের ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম নেই।

এ বিষয়ে মোহাম্মদ বজলুর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, প্রাথমিক এ অনুসন্ধানের প্রতিবেদন আমরা কমিশনে জমা দিবো। কমিশন যে সিদ্ধান্ত দেবে সে অনুযায়ী পরবর্তী আইনগত কার্যক্রম চালানো হবে।

হাসাপাতালের তত্বাবধায়ক ডাক্তার মাহসিন উদ্দিন বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের একটি দল (দুদক) সকালে মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে এসে আমাদের স্টোর কিপারের বিরুদ্ধে আনীত একটি অভিযোগের অনুসন্ধানের কথা আমাকে জানিয়েছে। পরবর্তীতে তারা এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ স্টোর রুমের ওষুধ চিকিৎসা সরঞ্জামাদি যাচাই করেছেন। তবে এ বিষয়ে আমার কাছে এধরনের কেউ কোনো অভিযোগ করেনি।

মিলন রহমান/এনআইবি/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।

Related articles

Recent articles

spot_img