11.5 C
New York

ভৈরবে ৫ দিন ওষুধ সরবরাহ বন্ধ, সিভিল সার্জনের আলটিমেটামেও কাজ হয়নি

Published:

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ক্লিনিকমালিক ও ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের দ্বন্দ্ব মেটাতে সিভিল সার্জন সাইফুল ইসলাম গতকাল মঙ্গলবার উভয় পক্ষের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন। সে সময় তিনি দুই পক্ষকে সংকট সমাধানে ২৪ ঘণ্টার সময় দেন। সিভিল সার্জনের হয়ে একই বার্তা দেন ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ। কিন্তু কোনো পক্ষই নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসতে রাজি হয়নি। দুই পক্ষই বলছে, সরে আসার প্রক্রিয়া কী হবে, কিংবা পরবর্তী সময়ের প্রভাব সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা না পেয়ে একসঙ্গে বসা ঠিক হবে না।

ক্লিনিকের ফার্মেসি কর্মীরা জানান, ভৈরবে অন্তত অর্ধশত বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। ভৈরব ছাড়াও কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর, হাওর উপজেলা অষ্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ, সরাইল, নরসিংদীর বেলাব ও রায়পুরা উপজেলার বড় অংশ স্বাস্থ্যসেবা পেতে ভৈরবের ক্লিনিকগুলোতে আসেন। সিজারিয়ান অস্ত্রোপচার ছাড়াও প্রতিটি ক্লিনিকে দৈনিক গড়ে পাঁচটি করে অস্ত্রোপচার হয়। বহির্বিভাগে গড়ে ৫০ জন করে রোগী স্বাস্থ্যসেবা নেন। প্রত্যেক রোগীর বিপরীতে ওষুধের প্রয়োজন হয়। বেশির ভাগ রোগী ক্লিনিকের ফার্মেসি থেকে ওষুধ কেনেন। সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় প্রয়োজনীয় ওষুধ পেতে বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে রোগীদের। বিশেষ করে একটি ব্যবস্থাপত্রে উল্লেখ থাকা সব কটি ওষুধ একসঙ্গে পাওয়া যাচ্ছে না। এতে রোগীদের দুর্ভোগ দিন দিন বড় হচ্ছে।

Related articles

Recent articles

spot_img