13.2 C
New York

ভারতের স্বার্থ যতটা সুরক্ষিত হয়েছে, বাংলাদেশের ততটা হয়নি

Published:

সাবেক পররাষ্ট্রসচিব তৌহিদ হোসেন বলেন, ইতিহাস বলে দেয়, দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে ঢাকায় আওয়ামী লীগ আর দিল্লিতে কংগ্রেস সরকারে থাকাটা সম্পর্কের জন্য সেরা ‘কম্বিনেশন’। দুই সরকারের ইচ্ছা ছিল সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নেওয়া। ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দমনে বাংলাদেশ সহায়ক ভূমিকা রেখেছে।

উলফার মতো বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীদের শিবির সরিয়ে দিয়েছে। ১০ ট্রাক মামলার রায়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের সাজা দিয়েছে। অনেকগুলো সফরের মধ্য দিয়ে অমীমাংসিত বিষয়গুলো সমাধানের চেষ্টা হয়েছে। বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে ভারতকে ট্রানজিট দেওয়া আংশিকভাবে বাস্তবায়িত হয়েছে। দেরিতে হলেও সীমান্ত চুক্তির প্রটোকল বাস্তবায়ন করা হয়েছে। কিন্তু তিস্তার মতো অভিন্ন নদীর পানি চুক্তি সই হয়নি। বন্ধ হয়নি সীমান্ত হত্যা। ব্যবসা–বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের পণ্যের জন্য সমান ক্ষেত্র ভারতে নিশ্চিত হয়নি। সামগ্রিকভাবে ভারতের স্বার্থ যেভাবে রক্ষা হয়েছে, সেভাবে সুরক্ষিত হয়নি বাংলাদেশের স্বার্থ। ফলে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক ভারতের জন্য সহায়ক হলে বাংলাদেশের জন্য ততটা নয়।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ ছাড়া অন্য কোনো দেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক গভীর না হওয়ার জন্য এই কূটনীতিক ভারতের মানসিকতাকে দায়ী করেন। তাঁর মতে, একটি বড় রাষ্ট্র বাস্তবে তার পরিসর, অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তির কারণে বৃহৎ হতে পারে। কিন্তু এ কারণে সবার সঙ্গে কর্তৃত্ববাদী আচরণ করতে হবে, এর কোনো মানে হয় না।

Related articles

Recent articles

spot_img