4.4 C
New York

বিএনপিকে ভোটের পরও চাপে রাখতে চায় আওয়ামী লীগ 

Published:

বিএনপি আন্দোলনে সুবিধা করতে না পারলেও দলটির নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হাতে। লন্ডন থেকেই দল পরিচালনা করছেন তিনি। তারেক রহমানের এই নিয়ন্ত্রণই মেনে নিতে রাজি নয় আওয়ামী লীগ। এ জন্য যেকোনো মূল্যে তারেক রহমানের নেতৃত্বে বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীকে ক্ষমতার বাইরে রাখা অবশ্য কর্তব্য মনে করেন ক্ষমতাসীনেরা। 

তারেক ও জামায়াতকে ক্ষমতার দূরে রাখার আওয়ামী লীগের চাওয়ার সঙ্গে প্রতিবেশী দেশ ভারতের স্বার্থ মিলে গেছে। এর ফলে গত ১৫ বছর কখনো বিএনপিকে ভোটের বাইরে রেখে, কখনো ভোটে রেখেও ক্ষমতা ধরে রাখার ক্ষেত্রে বাইরের দুনিয়ায় বড় সমালোচনায় পড়তে হয়নি আওয়ামী লীগকে। এবার পশ্চিমা দুনিয়া থেকে চাপে পড়লেও ভারত কূটনৈতিকভাবে বাংলাদেশকে সাহায্য করেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দুনিয়ায় তারা বাংলাদেশের সরকারের পক্ষে জোরালোভাবে সমর্থন দিয়ে গেছে। ভোটের আগে যা খুবই প্রয়োজনীয় ছিল বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। 

আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র বলছে, নতুন সরকারও তারেক রহমানের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান অব্যাহত রাখবে। তারেক রহমানের অনুগত বিএনপির নেতারা মামলা ও সাজার ব্যাপারে কোনো ছাড় পাবেন না। বিএনপির ভেতরে অনেকেরই তারেক রহমানের নেতৃত্ব নিয়ে অসন্তোষ আছে। এসব নেতার আস্তে আস্তে কারামুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে। 

আওয়ামী লীগের একজন জ্যেষ্ঠ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, বিএনপির ওপর ১৫ বছর ধরে যে চাপ প্রয়োগ করা হয়েছে, এর পেছনের মূল কারণ, তারেক রহমানের নেতৃত্ব। আরেকটি কারণ হচ্ছে জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির জোট।  এই নেতা আরও বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে গঠিত চারদলীয় জোট একদিকে দেশের রাজনীতিতে ভারসাম্য নষ্ট করেছে। অন্যদিকে ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা, ১০ ট্রাক অস্ত্রের চালান, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ—এমন ভীতিকর অবস্থা তৈরি হয়েছিল। 

Related articles

Recent articles

spot_img