13.4 C
New York

বাড়ছে ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা

Published:

সংক্রামক ব্যাধি যক্ষ্মা সাধারণত আক্রমণ করে ফুসফুসে। এ কারণে এ বিষয়টিকেই গুরুত্ব দেওয়া হয় বেশি। চিকিৎসকরা বলছেন, যক্ষ্মার জীবাণু শুধু ফুসফুস নয়, মস্তিষ্ক, ত্বক, অন্ত্র, লিভার, কিডনি, হাড়সহ দেহের যে কোনো অঙ্গপ্রত্যঙ্গে সংক্রমণ ঘটাতে পারে। চিকিৎসায় অসচেতনতা ও অর্ধেক পথে ওষুধ সেবন ছেড়ে দেওয়ায় বাড়ছে ‘ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা’।

চিকিৎসকরা বলছেন, যত বেশি মাত্রায় রোগী শনাক্ত করা যাবে, এ রোগের চিকিৎসা ও প্রতিরোধ তত সহজ হবে। তবে এক্ষেত্রে এখনো অনেকটা পিছিয়ে দেশ।

মহাখালী জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের ১৪-১৫ এবং ১৮-১৯ নম্বর ওয়ার্ডে যক্ষ্মা আক্রান্ত রোগীদের ভর্তি করা হয়। তবে শারীরিক অন্য জটিলতার দিক বিবেচনায় অন্য ওয়ার্ডেও ভর্তি করা হয় রোগীদের।

নরসিংদী জেলার চন্দ্রীপাড়া এলাকার বাসিন্দা সেলিম মিয়া। যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালের ১৮-১৯ নম্বর পুরুষ ওয়ার্ডে ভর্তি তিনি। প্রায় দেড় মাস ধরেই হাসপাতালে ভর্তি। নিয়মিত ইনজেকশন, ওষুধ সবই নিচ্ছেন। কিন্তু অবস্থার পরিবর্তন নেই।

সেলিম মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, হঠাৎ কাশি, শ্বাসকষ্ট আর জ্বর শুরু হয়। এরপর এলাকার এক নারী কফ নিয়ে টেস্ট করতে দেন। তখন তারা বুঝতে পারেন যক্ষ্মা। পরে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে ভর্তি হতে বললে সরাসরি মহাখালীতে হাসপাতালে আসি। কিন্তু অবস্থার পরিবর্তন দেখি না। এখানে পরীক্ষায় দেখা যায়, ফুসফুসে বাতাস জমছে, পানিও আছে। যক্ষ্মা আছেই। দেড় মাস ধরে হাসপাতালে পড়ে আছি। কোনো উন্নতি নেই। রাতে ১০ থেকে ১২ বার ওঠা লাগে। হাসপাতালে থাকা, ওষুধ বিনামূল্যে হলেও বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষায় খরচ হচ্ছে অনেক।

আরও পড়ুন

হাসপাতালের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের ২৩ নম্বর বেডে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৪০ বছর বয়সী বাবুল। একেবারেই মুষড়ে পড়েছেন যক্ষ্মায়। তারা এসেছেন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা এলাকা থেকে।

বাবুল জাগো নিউজকে বলেন, আড়াই বছর ধরে যক্ষ্মায় ভুগছি। চার মাসে ১৮তম বারের মতো বক্ষব্যাধি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। গলা দিয়ে রক্ত যায়, গলা শুকিয়ে যায়, মাথাও গরম থাকে। এ পর্যন্ত তিন ব্যাগ রক্ত নিয়েছি, আগেও ছয় ব্যাগ নিয়েছি। শরীরে কোনো শক্তি পাই না, যা খাই তাই চলে যায়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০২৩ সালে বাংলাদেশে যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৩ লাখ ৭৭ হাজার মানুষ। তবে বাংলাদেশে জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির তথ্য অনুযায়ী দেশে শনাক্ত হয়েছে ৩ লাখ এক হাজার ৫৬৪ জন। ডব্লিউএইচও’র তথ্য ও দেশের টিবি শনাক্তের তথ্য অনুযায়ী, ৮০ শতাংশ রোগী শনাক্ত হয় এবং শনাক্তের বাইরে আছে আরও প্রায় ২০ শতাংশ যক্ষ্মা রোগী।

বাড়ছে ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা

২০২২ সালে বাংলাদেশে যক্ষ্মায় আক্রান্ত হন ৩ লাখ ৭৯ হাজার মানুষ। তবে শনাক্ত ছিল ২ লাখ ৬২ হাজার ৭৩১ জন। ডব্লিউএইচও’র তথ্য এবং যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির তথ্য অনুযায়ী দেশে, ৬৯ শতাংশ রোগী শনাক্ত হয় এবং শনাক্তের বাইরে ছিল আরও প্রায় ৩১ শতাংশ যক্ষ্মা রোগী। ওই বছর শনাক্ত হওয়াদের মধ্যে পুরুষের সংখ্যা ৫৪ শতাংশ ও নারীর সংখ্যা ৪২ শতাংশ। বাকি ৪ শতাংশ শিশু।

২০২১ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিভিন্ন মানদণ্ড বিবেচনা করে বাংলাদেশে যক্ষ্মা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৭৫ হাজার বলে ধারণা দেয়। তাদের মধ্যে ৩ লাখ ৭ হাজার ৫৬১ জন শনাক্ত হন। ডব্লিউএইচও’র তথ্য এবং যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির তথ্য অনুযায়ী সে বছর দেশে, ৮২ শতাংশ রোগী শনাক্ত হয় এবং শনাক্তের বাইরে ছিল আরও প্রায় ১৮ শতাংশ যক্ষ্মা রোগী।

জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির কৌশলপত্রে বলা হয়েছে, ২০২৫ সালের মধ্যে যক্ষ্মায় মৃত্যু ৭৫ শতাংশ (২০১৫ সালের তুলনায়) কমাতে হবে। ২০১৫ সালে যক্ষ্মায় মৃত্যু ছিল ৭৩ হাজার। ২০২৫ সালের মধ্যে যক্ষ্মা সংক্রমণ ৫০ শতাংশ (২০১৫ সালের তুলনায়) কমাতে হবে। তবে এসব লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে অনেক পিছিয়ে বাংলাদেশ।

এ পরিস্থিতিতে রোববার (২৪ মার্চ) দেশে পালিত হচ্ছে বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস ২০২৪। গত বছরের মতো এবছরও দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘হ্যাঁ! আমরা যক্ষ্মা নির্মূল করতে পারি!’

যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে যুক্ত ব্যক্তিদের মতে, দেশে যক্ষ্মা মোকাবিলায় রোগীদের দ্রুত শনাক্ত করা প্রয়োজন। আর তার সঙ্গে চিহ্নিত রোগীদের কমিউনিটি পর্যায় থেকে ফলোআপ ও সচেতনতা বাড়ানো প্রয়োজন।

দেশে যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণে জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির সঙ্গে দীর্ঘদিন কাজ করছে আইসিডিডিআর,বি।

আইসিডিডিআর,বির সিনিয়র সায়েন্টিস্ট সায়েরা বানু জাগো নিউজকে বলেন, যক্ষ্মারোগী এখন পর্যন্ত একটি ধারায় আছে। যেখানে একটা সময়ে শনাক্তের হার অনেক কম ছিল, তা এখন প্রায় ৮০ শতাংশ। তবে দেশে এখনো যক্ষ্মা রোগী অনেক বেশি। যক্ষ্মা প্রতিরোধ করতে আমাদের ধীরে ধীরে এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা কমিয়ে আনতে হবে। কিন্তু সেটা এখনো পারা যাচ্ছে না।

ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা শনাক্তকরণ এখনো সন্তোষজনক নয়
রোগী শনাক্ত করার বিষয়ে অগ্রগতি হলেও ‘ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা রোগীশনাক্তে এখনো অনেক পিছিয়ে বাংলাদেশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, দেশে প্রতিবছর ৪ হাজার ৯০০’র মতো রোগী যক্ষ্মার ‘ওষুধ প্রতিরোধী’ হয়ে ওঠেন। কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ২০২৩ সালে দেশে ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত করা গেছে ২ হাজার ৭২৯ জন। যাতে দেখা যায়, মোট রোগীর প্রায় ৫৫ শতাংশ এখনো শনাক্তের বাইরে রয়ে গেছে।

আরও পড়ুন

ঢাকার জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সিনিয়র পালমোনোলজিস্ট ডা. কাজী সাইফুদ্দীন বেননূর বলেন, যক্ষ্মা ধরা পড়লে চিকিৎসায় যেসব ওষুধ দেওয়া হয় তার মধ্যে রিফামপিসিন এবং আইসোনিয়াজিড কিছু কিছু রোগীর ক্ষেত্রে অকার্যকর হয়ে গেছে। মানুষের অসচেতনতায় ‘ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা’ হয়। এটি মানবসৃষ্ট। তাই সচেতনতায় এ সমস্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব।

দেশে সক্ষমতা না থাকায় ও প্রযুক্তিতে পিছিয়ে থাকায় এটি এখনো খুব বেশি সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান আইসিডিডিআর,বির সায়রা বানু।

তিনি বলেন, এ জায়গায় পিছিয়ে থাকাটা ভালো বিষয় নয়। এ রোগীদের মাধ্যমে অন্য সাধারণ মানুষও আক্রান্ত হচ্ছে। যক্ষ্মা প্রতিরোধ করতে হলে আমাদের এদেরও শনাক্তের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। তবে সক্ষমতা আগের তুলনায় ধীরে ধীরে বাড়ছে। বর্তমানে আমাদের কাছে জিন এক্সপার্ট মেশিন এসেছে। যার মাধ্যমে দুই ঘণ্টার মধ্যে এ ধরনের রোগীকে শনাক্ত করতে পারি। বর্তমানে ৬০০-এর মতো জিন এক্সপার্ট মেশিন আছে।

যক্ষ্মা প্রতিরোধে আইসিডিডিআর,বির বর্তমানে কী ধরনের কার্যক্রম চলমান তা জানতে চাইলে সায়রা বানু বলেন, আইসিডিডিআর,বি বর্তমানে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেট এবং রংপুর বিভাগে মোট ৩০টি জেলায় কাজ করছে। জেলাগুলোতে মোট ১১৩ মিলিয়ন জনসংখ্যাকে সেবা দিচ্ছে। শিশু যক্ষ্মা, প্রাপ্তবয়স্কদের যক্ষ্মা, ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা শনাক্ত করা এবং তাদের চিকিৎসার আওতায় আনার লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। মানুষের মধ্যে যক্ষ্মা সম্পর্কে সচেতনতা গড়ে তোলার জন্য বিভিন্ন পর্যায়ে সচেতনতামূলক কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। যক্ষ্মা কার্যক্রমের সঙ্গে ডারা সংশ্লিষ্ট, তাদের জন্য বিভিন্ন ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থাও করা হচ্ছে।

জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির তথ্যে জানা যায়, দেশের প্রতিটি উপজেলা হাসপাতাল, জেলা সদর হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বক্ষব্যাধি ক্লিনিক এবং নির্দিষ্ট এনজিও ক্লিনিকসহ সারাদেশে ৮৭১টি কেন্দ্রের মাধ্যমে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে যক্ষ্মা রোগের পরীক্ষা ও চিকিৎসা পাওয়া যায়।

২০২২ সালে দেশে প্রথম এআই বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তানির্ভর এক্স-রে মেশিনের মাধ্যমে যক্ষ্মা চিকিৎসা শুরু করেছে আইসিডিডিআর,বি। বিশ্বের যে কয়েকটি দেশে এআই এক্স-রে মেশিন প্রথম দিকে চালু হয়, তার মধ্যে বাংলাদেশ একটি। গত এক বছর দুই মাসে প্রায় ৬৬ হাজার ৬৭৪ জনকে এর মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। যেখানে ২৫০০ জনের মতো যক্ষ্মারোগী শনাক্ত হয়।

সাধারণত যক্ষ্মা ধরা পড়লে ছয় মাস পূর্ণ মেয়াদে ওষুধ খেতে হয়। এসময় ধারাবাহিকভাবে ওষুধ খাওয়ার কথা থাকলেও অনেকে দুই থেকে তিন মাস পর বন্ধ করে দেন। এতে তাদের শরীরে যক্ষ্মার জীবাণুর ওষুধ প্রতিরোধ সক্ষমতা বাড়ে। এছাড়া একজন থেকে আরেকজনের মধ্যে ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মার জীবাণু সংক্রমিত হয়ে সাধারণ একজনকেও আক্রান্ত করতে পারে।

এএএম/এমএইচআর/এমএস

Related articles

Recent articles

spot_img