17.8 C
New York

পণ্যের মান নিশ্চিতে জোর উদ্যোক্তাদের

Published:

ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা (এসএমই) অনেক সময় পণ্যের মানের দিকে তেমন একটা নজর দেন না। কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে ব্যবসা টেকসই করতে হলে পণ্যের মান উন্নত করা আবশ্যক। শুধু পণ্যের ক্ষেত্রে নয়, প্রতিষ্ঠানের নথিপত্র, বিপণন, শ্রমিকের মজুরি ও পরিবেশ সুরক্ষা—সব ক্ষেত্রেই যথাযথ মান নিশ্চিত করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারের প্রথম আলো কার্যালয়ে আজ বুধবার উদ্যোক্তা বৈঠকে এসব কথা বলেন বিভিন্ন খাতের এসএমই উদ্যোক্তারা। আইডিএলসি-প্রথম আলো এসএমই পুরস্কার ২০২৩ আয়োজন উপলক্ষে এ উদ্যোক্তা বৈঠকের আয়োজন করা হয়। বৈঠকে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক আনিসুল হক। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রথম আলোর ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন ও যুব কার্যক্রমের প্রধান মুনির হাসান।

বৈঠকে উদ্যোক্তারা তাঁদের সমস্যা ও এগিয়ে যাওয়ার নানা গল্প তুলে ধরেন। তাঁরা বলেন, অনলাইনে ব্যবসা নিবন্ধন (ট্রেড লাইসেন্স) ও ভ্যাট প্রদান, ঋণপ্রাপ্তিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের জটিলতায় পড়তে হয়। এতে ব্যবসার খরচ বেড়ে যায়, যা সামগ্রিক ব্যবসায় প্রভাব ফেলে।  

সভায় প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক আনিসুল হক বলেন, তরুণ উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করতে ও স্বীকৃতি দিতে আইডিএলসি-প্রথম আলো এসএমই পুরস্কার চালু করা হয়েছে। উদ্যোক্তাদের অনেক সমস্যা ও চ্যালেঞ্জ রয়েছে। তবে পণ্যের মানের বিষয়েও উদ্যোক্তাদের সতর্ক হতে হবে। ফাঁকি দিয়ে পণ্য বিক্রি বা সেবা দিলে সেই ব্যবসা শেষ পর্যন্ত টেকসই হয় না।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আইডিএলসি-প্রথম আলো এসএমই পুরস্কার–২০২২ বিজয়ী উদ্যোক্তা শাবাব লেদারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাকসুদা খাতুন। তিনি বলেন, এসএমই পুরস্কারের জন্য আবেদন করলে বেশ কিছু নথিপত্র প্রয়োজন হয়। এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের ও পণ্যের দুর্বলতাগুলো বোঝা যায়।  

সব ক্ষেত্রে চাই যথাযথ মান  
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ভেঞ্চার ক্যাপিটাল লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) শওকত হোসেন বলেন, ‘ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা করতে যথাযথ গবেষণা ও বিপণন প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে আমাদের দেশের উদ্যোক্তা পর্যায়ে অনেক ঘাটতি রয়েছে। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের অনেকেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেন না। আয়–ব্যয়ের নথি সংরক্ষণ ও পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে নজর দেন না। কেউ কেউ আবার অপ্রয়োজনীয় ব্যয় করেন। এ বিষয়গুলো ব্যবসায়িক প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে বাধা হিসেবে কাজ করে।’

অনলাইন মার্কেটপ্লেস কাজ ৩৬০–এর প্রতিষ্ঠাতা এমরাজিনা ইসলাম বলেন, শুধু পণ্য নয়, প্রতিষ্ঠানের নথিপত্র, বিপণন, শ্রমিকের মজুরি, পরিবেশ সুরক্ষাসহ সব ক্ষেত্রেই মান নিয়ন্ত্রণ গুরুত্বপূর্ণ।

পণ্য ও প্রতিষ্ঠানের মান নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে কয়েকটি পরামর্শ দেন গহনার ব্র্যান্ড শৈলীর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমীনা শৈলী। তিনি বলেন, পণ্য সম্পর্কিত তথ্যের সঙ্গে যথাযথ মান নিশ্চিত করা জরুরি। গ্রাহককে যেন সব সময় সঠিক পণ্য সরবরাহ করা হয়। গ্রাহক পণ্য কিনে কী ধরনের প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন, তা–ও বিবেচনায় নিতে হবে।
অনেক ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা শুধু মেলাকেন্দ্রিক ব্যবসা করে থাকেন। তবে এটি কোনো টেকসই প্রবণতা নয় বলে জানান ব্র্যান্ড প্র্যাক্টিশনার্স বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা মির্জা মুহাম্মদ ইলিয়াস। তিনি বলেন, মেলায় অংশ নিলে নেটওয়ার্কিং হয়, সুযোগ বাড়ে। তবে শুধু মেলানির্ভর হলে ব্যবসা টেকসই হবে না।

চামড়া খাতের প্রতিষ্ঠান ট্যানের স্বত্বাধিকারী তানিয়া ওয়াহাব বলেন, ‘আমাদের দেশে এসএমই উদ্যোক্তাদের পণ্যের দাম নিয়ে একধরনের নেতিবাচক প্রচারণা রয়েছে। বলা হয় পণ্যের দাম বেশি। দাম নিয়ে বুলিংয়ের শিকার হয়ে অনেক উদ্যোক্তা ঝরে গেছেন।
ঋণ পাওয়া বড় সমস্যা

পরামর্শক প্রতিষ্ঠান শাহিন’স হেল্পলাইনের প্রতিষ্ঠাতা মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, এসএমই উদ্যোক্তাদের অর্থায়নের ক্ষেত্রে বড় চ্যালেঞ্জ প্রয়োজনীয় নথিপত্র। অনেক উদ্যোক্তা নথিপত্রের বিষয়ে সচেতন নন।  

এসএমই ফাউন্ডেশনের মহাব্যবস্থাপক মো. নাজিম হাসান সাত্তারও মনে করেন, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে অনেক সমস্যা রয়েছে। যথাযথ নথিপত্রের অভাবে অনেক সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তা সামনে আগাতে পারেন না। পাঁচ কোটি টাকার জন্য যে নথি প্রয়োজন হয়, পাঁচ লাখ টাকার ক্ষেত্রেও একই নথি লাগে। এই প্রক্রিয়া আরও সহজ করা যেতে পারে।

এসএমই উদ্যোক্তাদের তথ্য সংরক্ষণের বিষয়ে আরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আইডিএলসি ফাইন্যান্সের মার্কেটিং কমিউনিকেশনসের মিডিয়া লিড মোহাম্মদ আছিফ হুসেইন। তিনি বলেন, এতে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পক্ষে উদ্যোক্তাদের ঋণ প্রদান করা সহজ হয়।  

আরও যাঁরা উপস্থিত ছিলেন
উদ্যোক্তা বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন ক্রিয়েটিভ সফট টেকনোলজির সিইও নাহিদা জাহান, সানজিদাস কেক ভেলীর সিইও সানজিদা সেতারানূর, তাহুরা স্টুডিওর সিইও হানিয়াম মারিয়া চোধুরী, এন জে ইট অ্যান্ড ফিটের প্রতিষ্ঠাতা নাহরে জান্নাত ও উইমেন ইন ডিজিটালের সিইও আছিয়া নীলা, জিরো ডিগ্রি কমিউনিকেশনের সিইও প্রমি নাহিদ, ওয়েব কিংডমের মার্কেটিং প্রধান প্রলয় হাসান, ভাইজার এক্সের সিইও ফয়সাল মোস্তফা, ভার্চুয়ানিক সল্যুশনসের সিইও মো. আসাদ ইকবাল, এক্সন হোস্টের সিইও ছালেহ আহমদ, ব্যাকপ্যাকওয়ালার সিইও কামরুল হাসান, দ্য ওয়েব ল্যাবের সিইও এনায়েত হোসেন, চরনযুগলের সিইও বিল্লাহ মামুন এবং প্রথম আলোর যুব কার্যক্রম ও ইভেন্টসের সহকারী ব্যবস্থাপক বায়েজিদ ভূঁইয়া।

আইডিএলসি-প্রথম আলো এসএমই পুরস্কার ২০২৩-এর আবেদনের করতে ভিজিট করতে হবে www.smeaward.com এ ।

Related articles

Recent articles

spot_img