11.5 C
New York

নেতানিয়াহুর বিদায়ের জন্য চাপ বাড়ছে

Published:

আমোরজা যখন মাইকে স্লোগান দিচ্ছিলেন, তখন তাঁর পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন ইহুদিদের ধর্মীয় একজন নেতা—নাম ইয়েহুদাহ গ্লিক। তাঁর মতামতটা অবশ্য ভিন্ন। গ্লিকের ভাষ্য, বিক্ষোভকারীরা এটা ভুলে গেছেন যে তাঁদের আসল শত্রু হামাস, প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু নন।

ইয়েহুদাহ গ্লিক বলেন, ‘আমি মনে করি, তিনি খুবই জনপ্রিয়। আর সেটিই এই মানুষগুলোকে (বিক্ষোভকারী) উত্তেজিত করে তুলছে। আমি মনে করি, তাঁরা এই সত্যটা মেনে নিতে চাচ্ছেন না যে দীর্ঘ সময় ধরে তাঁরা নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন, তারপরও তিনি ক্ষমতায় রয়েছেন।’

নেতানিয়াহু একসময় বলতেন, একমাত্র তিনিই ইসরায়েলকে নিরাপদ রাখতে পারেন। অনেক ইসরায়েলিও তাঁকে বিশ্বাস করতেন। নেতানিয়াহুর ভাষ্য ছিল, তিনিই ফিলিস্তিনিদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। ইসরায়েলের অধিকৃত ভূখণ্ডে, যেখানে ফিলিস্তিনিরা স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন করতে চায়, সেখানে ইহুদিদের বসতি স্থাপন করে দেবেন। আর এ জন্য ইসরায়েলকে কোনো কিছু ছাড় দেওয়ার প্রয়োজন পড়বে না।

তবে সবকিছু বদলে দেয় ৭ অক্টোবরের ইসরায়েলে হামাসের হামলা। নিরাপত্তার এই ব্যর্থতার জন্য অনেক ইসরায়েলিই নেতানিয়াহুকে দায়ী মনে করেন। ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা অনেকে বিবৃতি দিয়ে স্বীকার করেছেন, তাঁদের ভুলে হামাসের হামলা হয়েছে। তবে নেতানিয়াহু ব্যতিক্রম। এই হামলার কোনো দায় কখনোই তিনি নেননি। এতেই চটেছেন রোববার সন্ধ্যায় রাজপথে নামা বিক্ষোভকারীরা।

Related articles

Recent articles

spot_img