11.9 C
New York

দ্রুত আপিল নিষ্পত্তি করে শাস্তি কার্যকর করুন

Published:

এই রায়ে প্রমাণিত হলো, অপরাধীরা যত ক্ষমতাধরই হোক না কেন, অপরাধ করলে তাদের শাস্তি পেতেই হবে। অনেকে এই বিচারকে যুগান্তকারী বলেও অভিহিত করেছেন। কিন্তু ন্যায়বিচারের এই বার্তা অপরাধীদের মধ্যে চৈতন্য ফিরিয়ে আনতে পেরেছে, সে কথা নিশ্চিত করে বলা যায় না। কেননা, যেদিন সুবর্ণচরের আলোচিত ধর্ষণের মামলার রায় ঘোষণা করা হলো, তার এক দিন পরই একই উপজেলার চর কাজীমোকলেস গ্রামে এক মা ও তাঁর কিশোরী মেয়ে দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে ।

পাঁচ বছরের ব্যবধানে দুই ঘটনার মধ্যে অদ্ভুত যোগসূত্র হলো ক্ষমতার দাপট। প্রথম ঘটনায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা ও তাঁর সহযোগীরা আছেন। দ্বিতীয় ঘটনায় যে দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে আবুল খায়েরও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা। পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, তিনিই সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে চুরির নাটক সাজান।

সুবর্ণচর উপজেলার চরজব্বর থানা সূত্রের বরাত দিয়ে এর আগে প্রথম আলোর প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ২০১৮ সাল থেকে ৩ বছর ২ মাসে সুবর্ণচরে ৩০টি ধর্ষণ ও ৭১টি ধর্ষণচেষ্টার মামলা হয়েছে। এ ছাড়া ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে ২০১৮ সালে ১২টি, ২০১৯ সালে ২৪টি এবং ২০২০ সালে ৩১টি মামলা হয়। গত দুই বছরে সেখানে আরও অনেক ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেও বিচার হয়েছে খুব কমই। মানবাধিকারকর্মীরা জানান, বিভিন্ন এলাকার লোক চরাঞ্চলে বসতি স্থাপন করায় গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকট। ফলে অপরাধমূলক ঘটনাও বেশি ঘটে। কিন্তু প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে থানার দূরত্ব অনেক হওয়ায় সব ক্ষেত্রে মামলা হয় না।

Related articles

Recent articles

spot_img