6.6 C
New York

দুই ছাত্রনেতার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার হোক

Published:

বহিষ্কৃত ছাত্র ইউনিয়নের দুই নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ, কলা ও মানবিক অনুষদের দেয়ালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেয়ালচিত্র মুছে ধর্ষণ ও স্বৈরাচারবিরোধী গ্রাফিতি আঁকা হয়েছে। এ ধরনের দেয়ালচিত্র বা গ্রাফিতি স্থায়ী কিছু নয়। সময়ের ব্যবধানে বদলে যায়। এক দেয়ালচিত্রের ওপর অন্য চিত্র আঁকা হয়। যে দেয়াল থেকে বঙ্গবন্ধুর গ্রাফিতি মুছে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে, সেখানে ২০১৯ সালের সাবেক উপাচার্য ফারজানা ইসলামকে নিয়ে একটি গ্রাফিতি ছিল। এর পাশেই আরেকটি দেয়ালে বঙ্গবন্ধুর আরেকটি বড় গ্রাফিতি এখনো শোভা পাচ্ছে। তাই বঙ্গবন্ধুকে অবমাননার জন্য নতুন গ্রাফিতি আঁকা হয়েছে বলে যে অভিযোগ ছাত্রলীগ বা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন করেছে, তার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক। একটি গ্রাফিতির স্থলে আরেকটি গ্রাফিতি আঁকার জন্য দুই শিক্ষার্থীকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত কেবল অন্যায় নয়, অমানবিকও।

জাহাঙ্গীরনগরসহ বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের একশ্রেণির নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগ থাকলেও তাঁদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন সময়ে ছাত্র ইউনিয়ন বা অন্য ছাত্রসংগঠনের গ্রাফিতি মুছে ছাত্রলীগের নতুন গ্রাফিতি করার দৃষ্টান্ত আছে। এসব ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে কোনো ভূমিকা রাখতে দেখা যায়নি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ক্যাম্পাসে ধর্ষণসহ নানা অপকর্ম বন্ধ করতে নিষ্ক্রিয় থাকলেও ছাত্র ইউনিয়নের দুই নেতাকে বহিষ্কারের ক্ষেত্রে অতি তৎপরতা দেখিয়েছে।

Related articles

Recent articles

spot_img