8.4 C
New York

ঢাবির গণযোগাযোগের অধ্যাপককে তিন মাসের ছুটিতে পাঠাল কর্তৃপক্ষ

Published:

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতার ওই অধ্যাপকের বিরুদ্ধে গতকাল রোববার বিভাগেরই এক ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এ এস এম মাকসুদ কামালের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। গতকাল বিভাগটির সব ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে দিনভর বিক্ষোভ করেন। আন্দোলনের দ্বিতীয় দিন আজ বেলা ১১টা থেকে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ভবনের নবম তলায় সাংবাদিকতা বিভাগের বারান্দায় অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। বিক্ষোভের একপর্যায়ে তাঁরা অভিযুক্ত শিক্ষকের বিভাগীয় কক্ষ তালাবদ্ধ করে দেন। দুপুর দেড়টার দিকে বিভাগের শ্রেণিকক্ষগুলোও সিলগালা করে দেন তাঁরা। বেলা দুইটার দিকে নবম তলা থেকে মিছিল নিয়ে সিঁড়ি দিয়ে নিচে নামেন শিক্ষার্থীরা৷ মিছিলটি সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ, মধুর ক্যানটিন ও মল চত্বর হয়ে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে যায়। মিছিল থেকে ‘শিক্ষা নিপীড়ন, একসাথে চলে না’, ‘যে শিক্ষক নিপীড়ক, সেই শিক্ষক মানি না’, ‘সানগ্লাসের আড়ালে, শিক্ষকতা হারালে’ প্রভৃতি স্লোগান দেওয়া হয়।

শিক্ষার্থীরা যখন উপাচার্য কার্যালয়ে যান, তখন তিনি কার্যালয়ে ছিলেন না। সেই সময় উপাচার্যের বাসভবনে তাঁর সঙ্গে বিদেশি একটি প্রতিনিধিদলের পূর্বনির্ধারিত বৈঠক ছিল। উপাচার্যকে না পেয়ে বেলা আড়াইটার দিকে কার্যালয়ের সামনে থেকে মিছিল নিয়ে তাঁর বাসভবনের সামনে যান সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা৷ সেখানে অবস্থান করে তাঁরা কিছুক্ষণ স্লোগান দেন। একপর্যায়ে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে আসেন সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারম্যান আবুল মনসুর আহাম্মদসহ তিন শিক্ষক। বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন সহকারী প্রক্টরও সেখানে ছিলেন।

Related articles

Recent articles

spot_img