11.5 C
New York

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাচ্যনাটের ‘লাল যাত্রা’

Published:

২৫ মার্চ ভয়াল কালরাতের শহীদদের স্বরণে ‘লাল যাত্রা’ করেছে দেশের জনপ্রিয় নাট্যদল প্রাচ্যনাট। সোমবার (২৫ মার্চ) বিকেল সাড়ে ৪টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বর (টিএসসি সড়ক দ্বীপ) থেকে যাত্রা শুরু হয়ে স্মৃতি চিরন্তন চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। লালযাত্রা থেকে চলচ্চিত্র পরিচালক আজাদ আবুল কালামকে ‘লাল স্যালুট’ দেওয়া হয়।

লাল যাত্রায় প্রাচ্যনাটের কর্মী ও ভক্ত-অনুরাগীরা কালো পোশাক পরে, কপালে লাল তিলক ও লাল ফোটা দিয়ে অংশগ্রহণ করেন। হাঁটতে হাঁটতে নাট্যকর্মীরা ঢাক-ঢোল, তবলা, বাঁশি, গিটারসহ নানা রকমের বাদ্যযন্ত্র বাজান। পদযাত্রা করতে করতে তারা ২৫ মার্চ রাতের গণহত্যার দৃশ্যসমূহ চিত্রায়ণ করতে থাকেন। এর আগে সড়কদ্বীপে গণহত্যার দৃশ্যে তারা সংক্ষিপ্ত দলগত অভিনয় প্রদর্শন করেন।

jagonews24

প্রাচ্যনাটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা তৌফিকুল ইসলাম ইমন বলেন, ২০১১ সাল থেকে প্রতিবছর আমরা আজকের দিনে এই লাল যাত্রা করি। এটা মূলত রাহুলের (জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী) ভাবনা থেকেই শুরু হয়। একাত্তর সালের ২৫ মার্চ রাত থেকে এদেশে দীর্ঘ সময় ধরে যে গণহত্যা চলেছে তার কিন্তু কোনো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি নেই। এগুলোর কোনো বিচার পর্যন্ত হয়নি। আমরা এই যাত্রার মাধ্যমে মূলত মানুষকে আহ্বান করতে চাই, সবাইকে মিলিত করতে চাই। গণহত্যার স্বীকৃতি ও বিচার দাবি করতে চাই।

jagonews24

নাট্যকর্মী বিশ্বনাথ দাস বলেন, প্রাচ্যনাট বাংলাদেশের জনপ্রিয় একটি নাট্যদল। বিখ্যাত নাট্যকার সেলিম আল দীন এই দলের নামকরণ করেছিলেন। এটি মূলত থিয়েটার গ্রুপ। আমাদের এই নাট্যদলটি ১৯৯৭ সালে সেই সময়ের ঐতিহ্যবাহী থিয়েটার অনুশীলন থেকে বেরিয়ে এসে নতুন ধারার নাটকের আবেগ ধারণ করে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে সফলভাবে দলটি দেশে সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এই দলের চিন্তার সাথে রাহুল দা ছিলেন। উনিই মূলত এই লাল যাত্রা ধারণার উদ্ভাবক।

হাসান আলী/বিএ

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।

Related articles

Recent articles

spot_img