19.3 C
New York

ঢাকা উত্তরের যে চার খাল হেঁটেই পার হওয়া যায় 

Published:

আবর্জনার স্তূপ জমেছে কাটাসুর, রামচন্দ্রপুর এবং কল্যাণপুর ক ও চ—এই চার খালে। অপেক্ষাকৃত ভালো অবস্থায় রয়েছে অর্থাৎ কিছুটা হলেও পানিপ্রবাহ রয়েছে পাঁচটি খালে। এই পাঁচ খাল হলো—গোদাখালী খাল, প্যারিস রোড খাল, বাউনিয়া খাল, ইব্রাহিমপুর খাল ও কল্যাণপুর খ খালে। অবশ্য এসব খালের পানি কালো ও দুর্গন্ধযুক্ত। এর বাইরে কল্যাণপুর জলাধারের প্রায় পুরোটা কচুরিপানায় ঢাকা।

আগামী বর্ষা মৌসুমে ভারী বৃষ্টি হলে ঢাকা উত্তর সিটির বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন নগর–পরিকল্পনাবিদেরা। তাঁরা বলছেন, একসময় ভারী বৃষ্টি হলে ঢাকা দক্ষিণ সিটির আওতাধীন বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা বেশি হতো। তবে এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে। ঢাকা উত্তরের বেশ কিছু এলাকায় এখন ভারী বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতা হচ্ছে।

গত দুই বছরে বর্ষার সময় জলাবদ্ধতা হয়েছে ঢাকা উত্তর সিটির আওতাধীন ফার্মগেট, মোহাম্মদপুর, শ্যামলী, কল্যাণপুর, শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া, মিরপুর, রূপনগর, খিলক্ষেত, নর্দ্দা ও বাড্ডা এলাকায়। ২০২২ সালের ২৫ অক্টোবরে ভারী বৃষ্টির পর মোহাম্মদপুরের রামচন্দ্রপুর খালের পানি উপচে বাসাবাড়িতে ঢুকে পড়েছিল। তখন মোহাম্মদীয়া হাউজিং লিমিটেড, নবোদয় হাউজিং, মোহাম্মদীয়া হোমসসহ আশপাশের বস্তি এলাকায় ব্যাপক জলাবদ্ধতা হয়। খালের ওপরে থাকা সেতুতেও তখন হাঁটুপানি জমেছিল। দুদিন পানিবন্দী ছিলেন গাবতলী সিটি কলোনির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা।

এ ছাড়া গত বছরের ৩০ জুন ৮৭ মিলিমিটার বৃষ্টিতে মিরপুর ১৪ নম্বর থেকে ১০ নম্বরে যাওয়ার সড়কটি পানিতে তলিয়ে যায়। সেদিন কাজীপাড়া থেকে শেওড়াপাড়া যাওয়ার সড়কও ছিল পানির নিচে। ওই বছরের ৭ অক্টোবর ভারী বৃষ্টির পর জলাবদ্ধতা হয়েছিল কারওয়ান বাজার, গ্রিনরোডসহ ধানমন্ডি ২৭ নম্বর এলাকায়। 

Related articles

Recent articles

spot_img