20.8 C
New York

গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিতে একজন নিহত, আহত ৩

Published:

স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, লিয়াকত আলীর সমর্থক জাকির বিশ্বাসের ছেলে পরশ বিশ্বাস (১৯) মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর চন্দ্রদিঘলিয়া বাজারে চায়ের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে ধূমপান করছিলেন। এ নিয়ে কামরুজ্জামান ভূঁইয়ার সমর্থক একই গ্রামের কালু ভূঁইয়ার ছেলে দ্বীপ ভূঁইয়া ও হিদু ভূঁইয়ার ছেলে সিমন ভূঁইয়ার সঙ্গে পরশ বিশ্বাসের কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তাঁরা দুজন পরশ বিশ্বাসকে চড়থাপ্পড় মারেন।

খবর পেয়ে বি এম লিয়াকত আলীর সমর্থকেরা সংগঠিত হয়ে দেশি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে কামরুজ্জামান ভূঁইয়ার সমর্থকদের দিকে ধেয়ে আসে। এ সময় কামরুজ্জামানের সমর্থকদের ছোড়া গুলিতে লিয়াকত আলীর সমর্থক ওসিকুর ভুইয়া (২৭), হাকিম খন্দকার (১৭), মেহেদি বিশ্বাস (১৭) ও লিমন ভূঁইয়াসহ (২১) পাঁচজন গুরুতর আহত হন। স্থানীয় লোকজন আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক জুয়েল সরকার ওসিকুর ভূঁইয়াকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত ব্যক্তির মা জবেদা বেগম বলেন, ‘আমার ছেলে লিয়াকত আলীর নির্বাচন করেছিল। আজ সন্ধ্যার পর বাজারে ওষুধ কিনতে গিয়েছিল। এ সময় কামরুজ্জামানের লোকজন আমার ছেলেকে গুলি করে হত্যা করেছে। আমরা হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই।’
পরাজিত প্রার্থী বি এম লিয়াকত আলী বলেন, ‘নিহত ওসিকুর ভূঁইয়া আমার ভাতিজা। সে আমার নির্বাচন করায় কামরুজ্জামান হুকুম দিয়ে তাঁর সমর্থক দিয়ে ওসিকুরকে হত্যা করিয়েছেন। আমি এর সঠিক বিচার চাই।’

Related articles

Recent articles

spot_img