9.6 C
New York

কোটি টাকার হৃদয়ের কোটি টাকার ব্যাটিং

Published:

বিপিএলে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব বরাবরই পার্শ্বনায়কের। পাওয়ারপ্লেতে বিদেশি ‘হিটার’ মারবেন, বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের কাজ হবে তাঁকে সঙ্গ দেওয়া, জুটি গড়া। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো দল সাজায়ও এই ভাবনা থেকে। তাই বিপিএলে বেশির ভাগ দেশি ব্যাটসম্যানের স্ট্রাইক রেট খুব ভালো হলেও ১২০ থেকে ১৩০-এর ঘরেই থাকে।

হৃদয় এ নিয়ে টানা দুই বছর সেই ‘বাংলাদেশি স্ট্রাইক রেট’ থেকে বেরিয়ে এসেছেন। সাকিব আল হাসান তা করছেন তিন বছর ধরে। তবে সাকিবের রান গত তিন বিপিএলে ৪০০ ছুঁতে পারেনি। হৃদয় নিয়মিত বড় ইনিংস খেলছেন এবং তাঁর ব্যাট থেকে রান আসছে বেশ দ্রুত। তিনি যেন বাংলাদেশেরই গেইল কিংবা রুশো!

গত বিপিএলে নিশ্চয়ই হৃদয়ের ব্যাটিংয়ে এমন কিছুর সম্ভাবনা দেখেছিলেন কুমিল্লার কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। সে জন্যই ড্রাফটের বাইরে থেকে হৃদয়কে দলে ভেড়াতে একটুও দ্বিধা করেননি। তবে ২৩-এর তরুণকে দলে ভেড়াতে কুমিল্লাকে মোটা অঙ্কের টাকা গুনতে হয়েছে। জানা গেছে, কুমিল্লার সঙ্গে হৃদয়ের চুক্তি এক কোটি টাকারও বেশি।

অবশ্য টাকার অঙ্ক যা-ই হোক, কুমিল্লার যে ‘পয়সা উশুল’ হয়েছে, সেটা নিশ্চিত। কাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে প্রথম কোয়ালিফায়ারে হৃদয়ের ব্যাট থেকে এসেছে ৬৪ রানের একটি ঝলমলে ইনিংস।

এর আগে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে রান তাড়ায় অপরাজিত ৯১ রান করেন। তার আগে সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে হৃদয় দুর্দান্ত ঢাকার বিপক্ষে খেলেছেন ১০৮ রানের অপরাজিত ইনিংস, যা ছিল এবারের বিপিএলের প্রথম সেঞ্চুরি।

হৃদয়ের তিনটি ইনিংসই এসেছে রান তাড়ায়। তিনটি ম্যাচই জিতেছে কুমিল্লা। চট্টগ্রামে তাই কুমিল্লার কোচ সালাউদ্দিনই মজা করে বলছিলেন, ‘আমার মনে হয়, আমাদের বিনিয়োগটা ভালো ছিল। আমরা ঠিক খেলোয়াড়কে নিয়েছি। দুটি ম্যাচ একাই জিতিয়েছে। সে যেভাবে খেলে, স্ট্রাইক রেট বলেন আর যেটাই বলেন, তা দিয়ে দলটাকে এগিয়ে নিয়ে আসে। আমাদের বিনিয়োগটা খুব ভালো হয়েছে।’

Related articles

Recent articles

spot_img