19.5 C
New York

করোনায় স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে ৩ লাখের বেশি মৃত্যু 

Published:

গবেষকেরা ১৯৫০ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ২০৪ দেশ ও অঞ্চল এবং ৮১১টি উপ-অঞ্চলের তথ্য বিশ্লেষণ করেছেন। বিশ্লেষণের জন্য তাঁরা ২২ হাজার ২২৩টি তথ্য সূত্রের সাহায্য নিয়েছেন। এর মধ্যে ছিল জন্ম-মৃত্যুনিবন্ধন, নানা ধরনের জরিপ, জনশুমারি এবং অন্যান্য সূত্র। বিশ্লেষণের সময় প্রজনন হার, পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু ও প্রাপ্তবয়স্কদের মৃত্যুহার, নির্দিষ্ট বয়সভিত্তিক মৃত্যু বোঝার জন্য নির্দিষ্ট মডেল ব্যবহার, যুদ্ধ ও দুর্ভিক্ষের পরিস্থিতিতে মৃত্যুর তথ্য এবং করোনার কারণে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মৃত্যুর তথ্য ব্যবহার করা হয়েছে। পাশাপাশি জনসংখ্যার অনুমিত সংখ্যা নেওয়া হয়েছে।

করোনার প্রথম দুই বছরে কত মৃত্যু হয়েছে এবং অন্য সময়ে সম্ভাব্য সব কারণে কত মৃত্যু হয়, এই দুইয়ের বিয়োগফল থেকে বাড়তি মৃত্যুর সংখ্যা গবেষকেরা বের করেছেন। বিশ্বে ১ কোটি ৫৯ লাখ বেশি মৃত্যু হয়েছে। 

গবেষকেরা বলছেন, গত সাত দশকে মৃত্যু ক্রমাগত কমেছে। এই ধারা দেখা গেছে, ১৯৫০ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত। ২০২০ ও ২০২১ সালে দেখা গেছে, মৃত্যুর ধারা বিপরীতমুখী, অর্থাৎ মৃত্যু বাড়ছে। বয়সভিত্তিক বিভাজনে দেখা যায়, শুধু পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের মৃত্যু আগের মতোই কমছে। অন্য সব ক্ষেত্রে (১৫ বছরের কম বয়সী, ১৫-৬৪ বছর এবং ৬৫ বছর ও তার বেশি বয়সী) মৃত্যু বাড়তে দেখা গেছে।

করোনায় মৃত্যুর প্রভাব পড়েছে প্রত্যাশিত গড় আয়ুর ওপর। ১৯৫০ সাল থেকে বৈশ্বিক গড় আয়ু ক্রমাগত বেড়েছে। তবে ২০১৯ সালের চেয়ে ২০২১ সালে বৈশ্বিক গড় আয়ু ১ দশমিক ৬ বছর কম দেখা গেছে।

Related articles

Recent articles

spot_img