13.4 C
New York

ঈদের ছুটিতে ছোটখাটো সমস্যায় বাড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসা নিন

Published:

যেহেতু ডায়রিয়া, ফুড পয়জনিং ও বদহজম বেশি হতে পারে, সে কারণে খাদ্য গ্রহণের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। বাসি বা গুরুপাক খাবার কম খেতে হবে। অনেকে যাত্রাপথে রাস্তার খাবার খেয়ে অসুস্থ হন। সেগুলো খাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক থাকা উচিত। যাত্রাপথে শুকনা খাবার নিয়ে যাওয়া ভালো। শিশুদের খাবার সঙ্গে করে নিয়ে নিন। খাওয়ানোর আগে গরমে সেটা ঠিক আছে কি না, দেখে নিন।

  • বিশুদ্ধ ও ফোটানো পানি পান করতে হবে। সঙ্গে স্যালাইন রাখা যেতে পারে। ডায়রিয়া হলে স্যালাইন খেতে হবে।

  • ঠান্ডা-কাশি, জ্বরের জন্য অ্যান্টিহিস্টামিন ও প্যারাসিটামল সঙ্গে রাখুন।

  • কাটাছেঁড়া ও আঘাতের জন্য ফার্স্ট এইড বক্স রাখা যেতে পারে। যার মধ্যে গজ-ব্যান্ডেজ, ব্যান্ড–এইড ও অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম থাকবে। শিশুদের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। আগুন বা পানির কাছে যেন না যায়।

  • খাদ্য হজমজনিত বা গ্যাসের সমস্যা হতে পারে অনেকের। সে কারণে সঙ্গে গ্যাসের ওষুধ বা অ্যান্টাসিড–জাতীয় ওষুধ রাখা যেতে পারে।

  • যাঁদের মোশন সিকনেস আছে বা যাত্রাপথে বমি ভাব হয়, তাঁরা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে প্রয়োজনীয় ওষুধ; যেমন মাথা ঘোরা বা বমির ওষুধ রাখতে পারেন।

  • অন্তঃসত্ত্বা নারীদের এই সময়ে খাবার থেকে যাতায়াত—সবকিছুতেই সতর্ক থাকা উচিত।

  • যাঁরা ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ বা অন্যান্য সমস্যার জন্য বিভিন্ন ওষুধ নিয়মিত সেবন করেন, তাঁদের উচিত পর্যাপ্ত ওষুধ আগে থেকেই সংরক্ষণ করে রাখা।

ঈদের আনন্দের মাঝে এ রকম ছোটখাটো সমস্যা হতেই পারে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এগুলো সহজে সমাধানযোগ্য। তবে মনে রাখতে হবে যে এসব প্রাথমিক ব্যবস্থা গ্রহণের পরও কেউ অসুস্থ বোধ করলে, বিলম্ব না করে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে। গাফিলতি করা যাবে না।

ডা. সাইফ হোসেন খান, মেডিসিন কনসালট্যান্ট, পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ধানমন্ডি।

Related articles

Recent articles

spot_img