23.4 C
New York

আওয়ামী লীগ নেতা সুরুজের আপিল হাইকোর্টের তালিকা থেকে বাদ

Published:

অস্ত্র মামলায় ১৭ বছরের সাজা থেকে খালাস চেয়ে টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের আলোচিত সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম তালুকদার ওরফে সুরুজের আপিল কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বুধবার (২০ মার্চ) হাইকোর্টের বিচারপতি সৈয়দ জিয়াউল করিম ও বিচারপতি কে এম ইমরুল কায়েশের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে আজ সুরুজের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মনিরুল ইসলাম।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মনিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সাজার বিরুদ্ধে সাইফুল ইসলাম তালুকদার ওরফে সুরুজের আপিল আজ রায় ঘোষণার জন্য ছিল। রায় ঘোষণার একপর্যায়ে আসামির আইনজীবী ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার আপিল মামলাটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দেওয়ার আবেদন জানান। পরে আদালত আপিলের রায় ঘোষণা না করে মামলাটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়ে আদেশ দেন।

২০১৭ সালের ১৫ নভেম্বর অস্ত্র মামলায় সুরুজের ১৭ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। ওইদিনই আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। ওইদিনই টাঙ্গাইলের ১ নম্বর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। বিচারক আবুল মনসুর মিয়া তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০১৬ সালের ৮ এপ্রিল টাঙ্গাইল গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল সাইফুলের ওরফে সুরুজের গোপালপুর উপজেলা সদরের নন্দনপুর এলাকার বাসভবনে অভিযান চালায়। এ সময় তিনি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। পুলিশ তাকে ধরে ফেলে এবং তার কাছ থেকে চারটি গুলিসহ একটি বিদেশি পিস্তল উদ্ধার করে।

পরদিন গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান টিটু বাদী হয়ে গোপালপুর থানায় সাইফুলের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পরে গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মিজানুর রহমান তদন্ত শেষে তার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। তিনি ২০১৬ সালের ১৬ অক্টোবর জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে পলাতক ছিলেন। বর্তমানে তিনি জামিনে রয়েছেন।

এফএইচ/ইএ/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।

Related articles

Recent articles

spot_img