13.4 C
New York

আইএস–আতঙ্ক কি আবার ফিরে আসছে

Published:

সেদিনই এই হামলার দায় স্বীকার করে ইসলামিক স্টেট–খোরাসান প্রভিন্স (আইএসকেপি)। আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) আফগানিস্তান শাখা হচ্ছে এই আইএসকেপি। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, তাদের গোয়েন্দা তথ্যমতে আইএসকেপির এই দাবির সঠিক।

হামলার বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে পোস্ট দিয়েছে আইএসকেপি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সিরিয়া ও ইরাকে পরাজয়ের পর আইএসের ঘুরে দাঁড়ানোর সর্বশেষ দৃষ্টান্ত এই হামলা। একই সঙ্গে আইএস যে উদ্দেশ্য হাসিলে কাজ করছে, তা পূরণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি হিসেবে আবির্ভাব ঘটেছে আফগানিস্তানের।

২০২৩ সালে ‘দ্য ইসলামিক স্টেট ইন আফগানিস্তান অ্যান্ড পাকিস্তান: স্ট্র্যাটেজিক অ্যালায়েন্সেস অ্যান্ড রাইভালরিস’ নামের একটি বই প্রকাশিত হয়। বইটির দুই লেখকের একজন হলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ক্যারোলাইনার ক্লেমসন ইউনিভার্সিটির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আমিরা জাদুন। তিনি আল–জাজিরাকে বলেন, ‘রাশিয়ায় হামলার জন্য যদি নিশ্চিতভাবেই আইএসকেপি দায়ী হয়, তাহলে তারা যে লক্ষ্যের কথা বলে আসছে, তার সঙ্গে তাদের কর্মকাণ্ডের মধ্যে ব্যবধান ছিল সেটা পূরণের ইঙ্গিত দেয়। আইএসকেপির সেই লক্ষ্য হলো মধ্যপ্রাচ্য এবং দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার ভূরাজনীতিতে প্রভাবশালী দেশগুলোকে লক্ষ্যবস্তু করা।’

মস্কোয় হামলার দুই মাস আগে ইরানের কেরমান শহরে আত্মঘাতী এক বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। সেই হামলায় ৯০ জনের বেশি নিহত ও প্রায় ৩০০ জন আহত হন। সেই হামলার দায়ও স্বীকার করেছিল আইএসকেপি।

Related articles

Recent articles

spot_img